শীর্ষ সংবাদ
A huge collection of 3400+ free website templates JAR theme com WP themes and more at the biggest community-driven free web design site
Home / অলঙ্করণ / হয়ে যান আপনার সন্তানেদর বন্ধু

হয়ে যান আপনার সন্তানেদর বন্ধু

সন্তান বড় হতে শুরু করলে ওদের নিজস্ব জগত্ তৈরি হতে থাকে। জেনারেশন গ্যাপের কারণে বাবা, মায়েদের সঙ্গে বাড়তে থাকে দূরত্ব।
কখনও বাবা, মায়েরা সন্তানেদর বুঝতে পারেন না, তো কখনও সন্তানরা বাবা, মায়েদের ভুল বুঝে। তাই সন্তান টিনএজে পৌঁছতেই ওদের বন্ধু হয়ে উঠুন।
জেনে নিন ৫টি টিপস-
এখন সবাই ব্যস্ত থাকেন। একই বাড়িতে থেকেও সব সময় আমরা একসঙ্গে খাওয়া দাওয়া করি না। যে যার নিজের সময় মতো খাওয়া দাওয়া করি। চেষ্টা করুন দিনের কোনও একটা সময় সন্তানের সঙ্গে বসে খেতে। সকালের নাস্তা, দুপুরের বা রাতের খাবার যেটা সুবিধা হয়।
প্রতিদিন কিছুটা সময় সন্তানকে দিন। সারাদিন ও কী কী করল, কোথায় গেল, কীভাবে কাটল, জানতে চান। নিজের অভিজ্ঞতাও ওর সঙ্গে শেয়ার করুন। এই সময়টা শুধু আপনাদের থাক। টেলিভিশন বা ফোন যেন এই সময়ের অংশ না হয়ে ওঠে।
আপনার সন্তানের শখের জিনিস তার সঙ্গে শেয়ার করে নিন। মিউজিক, পেন্টিং বা যে কোনও কিছু যা আপনার সন্তান উপভোগ করে তা ওর সঙ্গে করুন। কিছুটা সময় যেমন ওকে দেওয়া হবে এতে, তেমনই ওর হবিকে আপনি গুরুত্ব দিলে সন্তান আপনাকে বন্ধু মনে করবে।
এই বয়সের ছেলে, মেয়েরা নিশ্চয়ই কোলে নেওয়া বা বেশি আদর পছন্দ করবে না। কিন্তু এভাবে সন্তানের সংস্পর্শ থেকে দূরে সরে যাবেন না। অন্য কোনওভাবে ওর কাছাকাছি থাকুন। চুলে আঙুল চালানো বা পিঠে স্নেহের হাত বোলানো। কিন্তু বেশিক্ষণ করবেন না। এর উদ্দেশ্য নিজের উপস্থিতি সন্তানকে বুঝতে দেওয়া।
অনেক সময়ই আমরা নতুন টেকনোলজি শিখতে চাই না। ফলে সন্তানদের সঙ্গে জেনারেশন তৈরি হয়। সন্তানদের কাছাকাছি থাকতে নিজেকে নতুন টেকনোলজির উপযুক্ত করে তুলুন। দরকার হলে সন্তানের কাছে শিখতে চান। এতে ওদের সময়কার টেকনোলজিকে আপনি গুরুত্ব দিচ্ছেন দেখে সন্তান আপনাকে কাছের মানুষ মনে করবে।

আপনার মন্তব্য

Check Also

শ্যুটিংস্পটে কেন কাঁদলেন শ্রদ্ধা!

কেন শ্যুটিংস্পটে কাঁদলেন শ্রদ্ধা

শ্রদ্ধা কাপুর, অভিষেকের পর থেকে একের পর এক ব্যবসাসফল সিনেমায় কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন। বর্তমানে …